November 27, 2022

আর্টিকেল লেখার নিয়ম | প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটারদের আর্টিকেল লেখার কলাকৌশল: বর্তমানে অনলাইন প্লাটফর্মে কন্টেন্ট রাইটিং এর ডিমান্ড অনেক। কিন্তু কথা হচ্ছে, যেন তেন আর্টিকেল লিখলে তো আর হবে না। হতে হবে প্রফেশনাল। অনেকের প্রশ্ন আর্টিকেল লেখার সঠিক নিয়ম কি? প্রফেশনাল কনটেন্ট লিখতে চাইলে কি কি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে? কিভাবে একটি সেরা আর্টিকেল লেখা সম্ভব? কন্টেন্ট রাইটিং এর সেরা টিপস গুলো কি কি? ইত্যাদি ইত্যাদি।

এক কথায়, প্রশ্নের নেই কোন শেষ। তাই আজকে আমরা আলোচনা করব আর্টিকেল লেখার নিয়ম সম্পর্কে। সুপ্রিয় পাঠক বৃন্দ আপনি যদি নিজেকে একজন প্রফেশনাল কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করাতে চান তাহলে অবশ্যই আমাদের আজকের স্ক্রিপটটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আজ আমরা এমন কিছু নতুন বিষয় আপনাদেরকে জানাবো– যেটা রাইটিং এর ক্ষেত্রে বেশ কাজে দেবে।

সেরা আর্টিকেল রাইটিং টিপস

দেখুন নিজেকে যদি কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে মনে করেন, তাহলে অবশ্যই আপনার মধ্যে বেশ কিছু গুণ থাকতে হবে। কারণ বর্তমানে ইন্টারনেটে প্রচুর আর্টিকেল রয়েছে। যে কারণে এখন কম্পিটিশন বেড়ে গেছে। তাই সবাই ইউনিক কিছু খুঁজে বেড়াচ্ছে। এখন অনেকেই বলতে পারেন, যেটা সত্যি সেটা তো সত্যিই, তাহলে ইউনিক লিখবো কিভাবে? দেখুন একটা উদাহরণের মাধ্যমে বোঝানো যাক।

মনে করুন আপনি গরুর রচনা লিখছেন। একই সাথে আপনার দুই বন্ধু গরুর রচনাটি লিখছে। আপনি আপনার মত করে লিখছেন, গরু একটি গৃহপালিত পশু। এর দুটি কান, চারটি পা, দুটি চোখ এবং একটি লেজ আছে। অপরদিকে আপনার আরেক বন্ধু লিখছে, গরু একটি গৃহপালিত পশু। গরুর দুইটি কান আছে। গরুর দুটি চোখ আছে। গরুর একটি লেজ আছে। ঠিক একইভাবে, আপনার আরেকটি বন্ধু লিখছে, গরু খুবই পরিচিত একটা প্রাণী। এটি গৃহপালিত এক পশু। গরুর আকৃতি বিরাট। এর সাধারণত দুটি কান, দুটি চোখ, একটি লেজ আছে। 

দেখুন এখানে কিন্তু একই বিষয়টি তিন জন তিন ভাবে উপস্থাপন করেছেন। আর এখানেই রয়েছে পার্থক্য। আর আপনাকে যদি বিচার বিবেচনা করতে দেওয়া হয় নিশ্চয়ই আপনি আপনার তৃতীয় বন্ধুর লেখা গরুর রচনাটি সিলেক্ট করবেন। কেননা সে কিছুটা আলাদা হবে তুলে ধরার চেষ্টা করেছে। ঠিক একইভাবে সেরা আর্টিকেল লিখতে চাইলে অবশ্যই আলাদা কিছু যোগ করতে হবে এবং লেখার মাঝে ভিন্নতা নিয়ে আসতে হবে। মূলত সেরা আর্টিকেল লেখার অন্যতম একটি উপায় হচ্ছে লেখার সঠিক নিয়ম জানা এবং বেশ কিছু কৌশল অবলম্বন করা।

আর্টিকেল লেখার টিপস

কেউ যদি প্রফেশনাল আর্টিকেল লিখতে চায় তাহলে অবশ্যই হাতেগোনা কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। 

প্রথমত: আপনি কোন বিষয়ের ওপর আর্টিকেল লিখবেন? সেটা টপিক বা সাবজেক্ট কি? তা মাথায় রাখা।

দ্বিতীয়তঃ অডিয়েন্স মূলত কি চাচ্ছে? মানে আপনার যে টপিক সেটা অডিয়েন্স কেন পড়তে এসেছে? এ বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে

তৃতীয়ত: অডিয়েন্স সর্বদা কেমন আর্টিকেল লিখতে পছন্দ করে? তাদের কাছে কি ধরনের আর্টিকেল স্বাচ্ছন্দ পূর্ণ? সেটা বুঝতে হবে।

চতুর্থত: অডিয়েন্স আপনার লেখা আর্টিকেল পড়ে বাড়তি কোন ইনফরমেশন পাবে কিনা? তার নিশ্চয়তা দিতে হবে।

পঞ্চমত: আপনি আর্টিকেলটির আকারে কতটুকু বড় করেছেন, সেটা অডিয়েন্সের পড়ার ধৈর্য আছে কিনা? সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

মূলত একজন রাইটার, এই বিষয়গুলো ফলো করে একটি কনটেন্ট লিখলে অবশ্যই সেটা ইউজার ফ্রেন্ডলি হবে এবং প্রফেশনাল কন্টেন্ট হিসেবে গণ্য হবে।

ইউনিক আর্টিকেল কি? কিভাবে ইউনিক আর্টিকেল লেখা যায়?

ইউনিক মানে নতুন। অর্থাৎ ইউনিক আর্টিকেল মানে নতুন আর্টিকেলকে বোঝায়। যেটা পুরাতন কোন আর্টিকেলের সাথে মিলবে না। এই যেমন আমি আপনাদের জন্য যে আর্টিকেল লিখছি এর মূল টাইটেল হচ্ছে “আর্টিকেল লেখার নিয়ম”। দেখুন আপনি যদি গুগলে এটা লিখে সার্চ করেন তাহলে অসংখ্য কনটেন্ট আপনার সামনে শো করবে। কিন্তু তাদের চাইতে আমার এই আর্টিকেলের মধ্যে ভিন্নতা রয়েছে।

সত্যি বলতে আমি যে ইনফরমেশন গুলো দিয়েছি সেগুলো মিথ্যা নয়, এগুলো ফলো করে চললে অবশ্যই ইউনিক আর্টিকেল লেখা সম্ভব হবে এবং সঠিক নিয়মে কন্টেন্ট লেখা যাবে। তবে অবশ্যই আমার লেখা এই আর্টিকেলটি অন্যদের সাথে ম্যাচিং করবে না। তাহলে বুঝতে পারছেন ইউনিক আর্টিকেল মানে হচ্ছে একদম আলাদা ধাঁচে লেখা কনটেন্ট। যেটা অন্য কোন ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট এর সাথে মিলবে না।

এখন কথা হচ্ছে, আপনি কিভাবে ইউনিক কনটেন্ট লিখবেন? এক কথায়, ইউনিক কনটেন্ট লিখতে হলে ক্রিয়েটিভ মাইন্ডের হতে হবে। আপনি ইউনিক জিনিস তখন লিখতে পারবেন যখন সেই সম্পর্কে জানবেন। যেমন ধরুন আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয়? এটা আপনি জানেন না।

এখন যদি কেউ আপনাকে বলে আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয় এ বিষয়ের উপর লিখতে, তাহলে কিন্তু আপনি অবশ্যই সেটা পারবেন না। এর একটাই কারণ সে সম্পর্কে জ্ঞান না থাকা। তাই যদি ইউনিক কন্টেন্ট লিখতে চান তাহলে অবশ্যই সে বিষয়ে বস্তু সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে প্রাথমিক ধারণা। 

কনটেন্ট লিখতে চাইলে কি কি ভাবনা প্রয়োজন?

কনটেন্ট রাইটারদের যেকোনো কনটেন্ট লেখার পূর্বে এবং লেখা চলাকালীন সময় অবশ্যই কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা উচিত। সেগুলো হচ্ছে:

  • আমার আর্টিকেলটি দেখতে কেমন হচ্ছে?
  • এগুলো লম্বা কম্পোজিশনের মত লাগছে না প্যারাগ্রাফ হচ্ছে?
  • সঠিক ইনফরমেশন আছে কিনা
  • অডিয়েন্স যা জানতে চাচ্ছে তার সম্পূর্ণ দিতে পারবে কিনা?
  • যে বিষয়টি সম্পর্কে লিখছি সে সম্পর্কে আমাকে আরো বিস্তারিত জেনে নেওয়া প্রয়োজন কি না 
  • আমি কনটেন্ট এর মধ্যে কোন হেডিং ব্যবহার করছি কিনা
  • কতটুকু এসইও ফ্রেন্ডলি হচ্ছে
  • অন্য কোন কনটেন্টের সাথে মিলছে কিনা ইত্যাদি বিষয়। 

আগেও বলেছি, কেউ যদি কোন বিষয় সম্পর্কে জেনে থাকে তবেই সে সেই সম্পর্কে সুন্দরভাবে গুছিয়ে লিখতে সক্ষম হবে। এবার চলুন জেনে নেই কনটেন্ট লেখার নিয়ম।

আর্টিকেল লেখার সঠিক স্ট্রাকচার

আপনি যদি একজন প্রফেশনাল রাইটার হতে চান তাহলে আপনাকে মূলত নিচের স্ট্রাকচার ফলো করে আর্টিকেল লেখা ট্রাই করতে হবে। কিন্তু হ্যাঁ আপনি চাইলে ই আলাদা কিছু যোগ করতে পারেন। তবে আমার মতে, অবশ্যই যে বিষয়গুলো আর্টিকেলের মধ্যে রাখবেন এবং যে স্ট্রাকচার ফলো করবেন সেটি হচ্ছে।

  • প্রথমেই মেইন কিওয়ার্ড 
  • পরবর্তীতে বিষয়টির মূল সারাংশ
  • এরপর সম্পূর্ণ ভাব প্রকাশ
  • পরবর্তীতে এন্ডিং।

এবার একটা উদাহরণের মাধ্যমে বোঝানো যাক। মনে করুন আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন কি এবং কিভাবে শিখব? এই কী ওয়ার্ডের উপর আর্টিকেল লিখবেন। এখন এই আর্টিকেল লেখার জন্য আপনাকে মূলত নিম্ন বর্ণিত স্ট্রাকচার ফলো করতে হবে। যথা:

  • গ্রাফিক্স ডিজাইন কি?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন কাকে বলে
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শেখা যায়?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ কি কি?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম কোনটি?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার জনপ্রিয় ওয়েবসাইট কোনগুলো?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার ফ্রি ওয়েবসাইট গুলোর নাম কি?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন ক্যারিয়ার হিসেবে কেমন?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইনিং এর মাধ্যমে কত টাকা ইনকাম করা যাবে?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ভ্যালু কেমন?
  • গ্রাফিক্স ডিজাইনের ভবিষ্যৎ কি? ইত্যাদি

এই বিষয়গুলো যদি আপনি পর্যায়ক্রমে সাজিয়ে নেন এবং পরবর্তীতে এক একটা ছোট প্যারা আকারে লেখেন তাহলে অবশ্যই আপনার লেখা আর্টিকেল টি ইউজার ফ্রেন্ডলি হবে। সেই সাথে এসইও মেইনটেইন করে আর্টিকেল লেখা হয়ে যাবে। কারণ এসইও এর ক্ষেত্রে হেডিং, ছোট ছোট প্যারা, এলএসএই কিওয়ার্ড ভূমিকা রাখে।

তাই আপনি যদি নিজেকে একজন প্রফেশনাল হিসেবে তুলে ধরতে চান তাহলে সঠিক ইনস্ট্রাকশন ফলো করে আর্টিকেল লেখা ট্রাই করুন। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, আপনার পাঠক কারা সেটা মাথায় রাখুন। কারণ স্বাভাবিকভাবে একজন এডাল্ট মানুষের যে বিষয়গুলো যেভাবে জানতে ভালো লাগবে, বাচ্চা বা অল্প বয়সে মানুষের সেটা সেভাবে জানতে ভালো লাগবে না। তাই আর্টিকেলের ধরন সেই কিওয়ার্ড এর ওপর নির্ভর করে লিখুন। সাথে আপনি কাদের জন্য লিখছেন বিষয়টি মাথায় রাখুন। 

তো পাঠক বৃন্দ, এই ছিল আমাদের আজকের আর্টিকেল লেখার নিয়ম সংক্রান্ত আলোচনা। আপনাদের মতামত অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন সেইসাথে যদি কোন কিছু জানার প্রয়োজন মনে তাহলে শেয়ার করবেন। পরবর্তী যেকোনো আপডেট পেতে এবং নতুন নতুন আরো টিপস ও ট্রিকস রিলেটেড আর্টিকেল পেতে আমাদের সাথে থাকুন। আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Subscribe To Our Newsletter