November 27, 2022

ডিজিটাল মার্কেটিং হল ডিজিটাল মিডিয়ার মাধ্যমে পণ্য বা পরিষেবার বিপণন। এই ধরনের বিপণন সার্চ ইঞ্জিন, ইমেল, ইলেকট্রনিক বিলবোর্ড, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদির মাধ্যমে করা যেত। আজ লক্ষ লক্ষ মানুষের মধ্যে একটি পণ্য বা পরিষেবা ছড়িয়ে দিতে ডিজিটাল মার্কেটিং এর কোন বিকল্প নেই। তাই আজকের প্রবন্ধে আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রকারভেদ, গুরুত্ব, উপকারিতা ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে যাচ্ছি।What is digital marketing

ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব

বিশ্বব্যাপী প্রায় 2 বিলিয়ন মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে এবং প্রায় 5.11 বিলিয়ন মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। ডিজিটাল মাধ্যমে পণ্য ক্রয়কারী ক্রেতার সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সেজন্য ডিজিটাল মাধ্যমে কেউ তাদের পণ্য ছড়িয়ে দিতে পারলে বাড়তি সুবিধা পাবেন। তা না হলে তাকে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়তে হবে। কারণ আপনার প্রতিযোগীরা বসে নেই, তারা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে ক্রেতাদের কাছে তাদের ব্যবসা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। কোকা-কোলা, ইউনিলিভার, নেসলে-এর মতো বড় কোম্পানিগুলিও ডিজিটাল বিশ্বে তাদের উপস্থিতি অনুভব করছে। সেজন্য উৎপাদনশীলতা এবং আরও আয়ের জন্য আপনার নিজেকে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে যুক্ত করা উচিত।
social-midea-1

ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রকারভেদ

ডিজিটাল মার্কেটিং করতে হলে প্রথমে আপনাকে মিডিয়া নির্বাচন করতে হবে, যার মাধ্যমে আপনি আপনার পণ্য বা সেবা অনেকের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারবেন। আজ আমরা 5টি মাধ্যম সম্পর্কে জানতে যাচ্ছি যা আপনার ব্যবসায় বিপ্লব ঘটাতে পারে।

  • সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান বা SEO: SEO হল গুগল সহ যেকোন সার্চ ইঞ্জিনের শীর্ষস্থানে আপনার ওয়েবসাইটের যেকোন কীওয়ার্ডকে র‌্যাঙ্ক করার প্রক্রিয়া। এসইও এর মাধ্যমে যেকোনো ওয়েবসাইটে প্রচুর ভিজিটর পাওয়া সম্ভব। একজন এসইও বিশেষজ্ঞ হিসেবে আপনার ক্যারিয়ার উজ্জ্বল হবে। সাধারণত দুই ধরনের SEO হয়: হোয়াইট হ্যাট SEO এবং ব্ল্যাক হ্যাট SEO
  • ইমেইল মার্কেটিংঃ ইমেইল এর মাধ্যমে কোন পণ্য বা সেবা বিপণন করাকে ইমেইল মার্কেটিং বলে। ইমেল বিপণন হল একটি কাঠামোগত নিবন্ধ বা বিষয়বস্তুর মাধ্যমে একটি পণ্যের গুণমান গ্রাহকের কাছে উপস্থাপন করা, তাকে সেই পণ্যটি কিনতে আগ্রহী করে তোলা। এটি আপনাকে অল্প সময়ের মধ্যে গ্রাহকদের কাছে পৌঁছাতে সহায়তা করে। স্মার্ট ইমেল পাঠিয়ে ব্যবসায় লাভবান হওয়া সম্ভব।
  • সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং: বিশ্বের 85% ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে সংযুক্ত। এর জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং (এসএমএম) এই বৃহৎ অংশের মানুষের কাছে সহজে পৌঁছানোর একটি কার্যকর উপায়। ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ, পিন্টারেস্ট, কোরা, লিঙ্কডইন, ফেসবুক, টুইটার ইত্যাদির মতো সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্যে আজকের বিশ্বে ব্যবসাকে ব্যাপকভাবে প্রচার করা সম্ভব হয়েছে।
  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং: এটাকে সাধারণত অন্য কোম্পানির পণ্যের বিপণন বলা হয়। অন্য কোম্পানির পণ্য বিক্রি করে যে কমিশন অর্জিত হয় তাকে অ্যাফিলিয়েট কমিশন বলে। এর মানে আপনি আমার পণ্য বিক্রি করবেন এবং বিনিময়ে আমি আপনাকে কিছু কমিশন দেব। বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার কোম্পানি অ্যাফিলিয়েট অপশন দিচ্ছে এবং হাজার হাজার পণ্য বিক্রি করছে। অনেক বিপণনকারী এই পণ্যগুলিতে কমিশন নিচ্ছেন। Amazon, Ebey, Alibaba, Themeforest সহ প্রায় সব বড় কোম্পানিরই এফিলিয়েট কমিশন আছে। এর মধ্যে অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট সবচেয়ে জনপ্রিয়।
  • কনটেন্ট মার্কেটিং: কনটেন্ট মার্কেটিং হল একটি ব্র্যান্ডের দর্শকদের কাছে তথ্যপূর্ণ এবং আকর্ষণীয় বিষয়বস্তু সরবরাহ করে তাদের আকর্ষণ করা। আপনাকে আপনার বিষয়বস্তু, যেকোনো পোস্ট বা অনলাইন ফোরামে লক্ষ্যযুক্ত কীওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে যাতে আপনার লক্ষ্যযুক্ত পাঠক বা ক্রেতারা সহজেই আপনার পণ্য খুঁজে পেতে পারে। তাই মাল্টিমিডিয়া বিষয়বস্তু নিয়মিত আপডেট করতে হবে। সামাজিক মিডিয়া সামগ্রী পোস্ট করার জন্য আপনার একটি স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া ব্যবহার করা উচিত। আপনি বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের জন্য আপনার সামগ্রী কাস্টমাইজ করতে পারেন। আজকের বিশ্বে, এটি পণ্য বা পরিষেবার প্রতিনিধিত্ব করার একটি আশ্চর্যজনক উপায়।

What is digital marketing

ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আয় করা

সাধারণত, ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের দুটি উপায় রয়েছে। প্রথমত, একজন মুক্ত বিপণনকারী হিসাবে, ডিজিটাল বিপণনের সুবিধাগুলি কাটা সম্ভব। উদাহরণস্বরূপ, আমি একজন বিষয়বস্তু লেখক। আমি এসইও, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এবং ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে প্রচুর ট্রাফিক পাই, যা আমার আয়ের হার বাড়িয়ে দেয়।

দ্বিতীয়ত, আপনি একটি এজেন্সির জন্য ফুল-টাইম ডিজিটাল মার্কেটার হিসেবে কাজ করতে পারেন। সেখান থেকেও আয় করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে ডিজিটাল মার্কেটিং জব পাবেন। এই ক্ষেত্রে, আপনি যদি একজন প্রো মার্কেটার হন, তবে এটি আপনার জন্য একটি সুবর্ণ সুযোগ।

একটি পরিসংখ্যান অনুসারে, বিজ্ঞাপনদাতারা ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রতি $ 44 খরচ করে। পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এজন্য ডিজিটাল মার্কেটারদের জন্য নতুন নতুন সুযোগ তৈরি হচ্ছে। তাই একটা বিষয় নিশ্চিত, ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।

উপসংহার

উপসংহারে, ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা এখন সময়ের প্রয়োজন। আপনি যদি সঠিকভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন তবে আপনার জীবন ইতিবাচকভাবে পরিবর্তন হতে পারে। আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর উপর বিনামূল্যে গুগল গ্যারেজ কোর্স করতে পারেন। Google গ্যারেজ কোর্স শেষ করার পর, আপনি একটি সার্টিফিকেট পাবেন। আজকের নিবন্ধটি এ পর্যন্তই। আপনি যদি এই নিবন্ধটির মাধ্যমে নতুন কিছু শিখে থাকেন তবে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

1 thought on “ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Subscribe To Our Newsletter