November 27, 2022

যেকোনো কাজে কন্টিনিউ করতে হলে আমাদের প্রোডাক্টিভিটি প্রয়োজন৷ যদি প্রোডাক্টিভিটি ভালো না থাকে তবে কাজ করে আগানো সম্ভব নয়৷ তাই আজ আলোচনা করব কিভাবে আমাদের প্রোডাক্টিভিটি আধ্যাত্মিকতার মাধ্যেমে বাড়াতে পারি৷

আধ্যাত্মিকতা আমাদের প্রোডাক্টিভিটি বাড়াতে পারে৷ তা ব্যাখ্যার জন্য স্পিরিচুয়াল প্রোডাক্টিভিটি শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে৷ নিজে উদ্যোগী না হিয়ে অজুহাত পেশ করে আধ্যাত্মিকার ভারবাহী লাঠি হিসেবে দুআর উপর নির্ভর করার ইঙ্গিত আগে আলোচনা করা হয়েছে৷

যাইহোক আজকের আলোচনা একটু ভিন্ন রকম হবে৷ এখানে দ্বীনের সুনির্দিষ্ট কতগুলো ধ্যান ধারণা চিন্তা মনস্তাত্ত্বিক দৈহিক ইবাদত ইত্যাদি বিষয়গুলোর প্রোডাক্টিভিটি বৃদ্ধি করে৷ আর এগুলো সাধারণত মানুষ সহজে অনুমান করতে পারে না৷ এটা একটা অন্য রকম বিষয় যা আমাদের কল্পনা, করতে বুঝতে কষ্ট হয়৷

আজ আমাদের উদ্দেশ্য আমরা উপলব্ধি করতে বা বুঝতে চেষ্টা করব যে__ স্পিরিচুয়াল প্রোডাক্টিভিটি একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ৷ প্রোডাক্টিভিটির লিডার বা নেতা হতে হলে এ বিষয় আগাগোড়া জানা এবং উপলব্ধি করা ও বুঝা দরকার৷ কারণ, এর মাধ্যমেই জীবনের প্রতিটি অংশে স্পিরিচুয়ালিটি সঞ্চারিত হয়৷

স্পিরিচুয়ালিটির একটা গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে ঐশ্বরিক সংযোগ দৃশ্যমান পৃথিবী এবং অদৃশ্যমান পৃথিবীর মধ্যে সম্পর্ক৷ প্রোডাক্টিভ মুসলিম হতে এই দুইটি বিষয় খুব গুরুত্বপূর্ণ৷

কেবল দৈহিক মনস্তাত্ত্বিক এবং সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে প্রোডাক্টিভিটির ধারণা ল্য খুব উৎসুক ছিলাম না৷ স্পিরিচুয়ালিটি কীভাব্র প্রোডাক্টিভিটির কাজ করে উন্নতি ঘটায় সে প্রশ্নের ও উত্তর খুজঁতে চেয়েছি৷ এ প্রশ্নের উত্তর বিভিন্নভাবে দেওয়া যায়৷ সম্ভবত এর সহজ উত্তর হচ্ছে মানুষ আল্লাহ এবং তার রাসুলের দেখানো জীবন ধারা পথ ও মতকে মেনে নিয়ে সে অনুযায়ী জীবন পরিচালনা করলে, সে তার সৃষ্টির উদ্দেশ্যের সাথে একটা যোগসূত্র খুজে পাবে৷ চুড়ান্ত সম্ভাবনার দ্বারে পৌঁছাতে পারবে৷ চুড়ান্ত সম্ভাবনার দ্বারে পৌঁছানোর জন্য কর্মশক্তি ফোকাস খুজে পাবে৷ স্পিরিচুয়াল দৃষ্টি ভঙ্গি থেকে এটা আমাকে সময় ফোকাস ও কর্মশক্তির এক নতুন উপলব্ধির বিশ্লেষণের সুযোগ করে দিয়েছে৷

স্পিরিচুয়াল পাওয়ারঃ 

স্পিরিচুয়াল এনার্জি বা পাওয়ার একমাত্র আপনি আল্লাহর নৈকট্য লাভের মাধ্যমে লাভ করতে পারবেন৷ এ শক্তি অর্জন করতে হলে আপানকে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা দরকার৷ আপনি যত বেশি আল্লাহর নিকটবর্তী হবেন তত বেশি কর্ম শক্তি অর্জন করতে পারবেন৷ যখন আপনি আল্লাহর নিকটবর্তী হবে তখন আপনি এই শক্তি অর্জন করতে পারেবন৷ যখন আপনি আল্লার নির্দেশ এবং রাসুল সা এর নির্দেশনা মেনে অনুসরণ করবেন৷ তখন আপনি আলাদা একটা শক্তি উপলব্ধি করবেন৷ কেউ কেউভেটাকে আবার মোটিভেশন বলে৷ তবে এটা স্পিরিচুয়াল এনার্জি বলা যায়৷

স্পিরিচুয়াল ফোকাসঃ

স্পিরিচুয়াল ফোকাস এটি গুরুত্বপূর্ণ এবং এর প্রতি ফোকাস করতে হবে৷ কেননা এটি আখিরাতের জন্য, এর প্রতি ফোকআদ করার দক্ষতা৷ এতে আপনি দুনিয়ার ঝলমলানিতে বিভ্রান্ত হবেন না৷ বরং উচ্চতর লক্ষ্য এবং বৃহত্তর পুরস্কারের প্রতি মনোযোগী হবেন৷ আখিরাতের প্রতি ধাবিত হবেন৷ আখিরাতের দিকে মনোযোগী হবেন৷ আখিরাতকে প্রধাণ্য দিবেন৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Subscribe To Our Newsletter