November 27, 2022

ইংরেজি আর্টিকেল লেখার নিয়ম (কনটেন্ট রাইটিং টিপস): অনেকেই মনে করেন, আর্টিকেল লেখা পানির মত সহজ। তবে যারা এ বিষয়ে কিছুটা প্রাথমিক ধারণা রাখেন, তারা গভীরভাবে উপলব্ধি করতে পারেন যে–একটা আর্টিকেল লেখার পেছনে কি পরিমান পরিশ্রম দিতে হয়। অনেকেই মনে করেন বাংলা, ইংরেজি, হিন্দি অর্থাৎ আলাদা আলাদা ভাষায় আর্টিকেল লেখার জন্য আলাদা স্ট্রাকচার ফলো করার প্রয়োজন।

আবার অনেকেই এমন প্রশ্ন করে থাকেন বাংলা আর্টিকেল লেখার নিয়ম কি? ইংরেজি আর্টিকেল লেখার নিয়ম কি? ভিউয়ার্স, আপনাদের সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে আমাদের আজকের এই আর্টিকেলের আয়োজন। এর পূর্ববর্তীতে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটার হওয়ার একটা পোস্ট পাবলিশ করেছি। কিন্তু আজকের আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করব ইংরেজি আর্টিকেল লেখার জন্য কি কি বিষয় মাথায় রাখতে হবে? তাহলে চলুন ইংলিশে আর্টিকেল লেখার টিপসগুলো জেনে নেই।

কনটেন্ট/আর্টিকেল কি? 

আর্টিকেল লেখার নিয়ম জানার পূর্বে আমাদের সুস্পষ্টভাবে জেনে নেওয়া প্রয়োজন কনটেন্ট কি বা আর্টিকেল কাকে বলে? মূলত কনটেন্ট একটি ইংরেজি শব্দ আর এর অর্থ বিষয় বস্তু। কনটেন্ট অথবা আর্টিকেল দ্বারা বোঝানো হয়ে থাকে কোন একটা বিষয়কে কেন্দ্র করে বিস্তারিত বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরার মাধ্যম। যেটা অডিয়েন্সদের কাছে বোধগম্য। কনটেন্ট মূলত বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেমন

  • লিখিত কনটেন্ট
  • ভিডিও কনটেন্ট
  • অডিও পডকাস্ট
  • পিপিটি ডক ফাইল
  • পিডিএফ ফাইল
  • ভিডিওগ্রাফি
  • ছবি কনটেন্ট ইত্যাদি।

তবে আমরা মূলত আজকের কনটেন্টে আলোচনা করব লিখিত কনটেন্ট সম্পর্কে। অর্থাৎ ইংরেজিতে আর্টিকেল লিখতে কি কি বিষয় মাথায় রাখতে হবে এবং কোন নিয়ম মেনে চললে প্রফেশনাল কনটেন্ট তৈরি করা সম্ভব হবে, এ সম্পর্কে।

ইংরেজি আর্টিকেল লেখার নিয়ম

আর্টিকেল বাংলা হোক অথবা ইংরেজি সেটা একই স্ট্রাকচারের লেখা সম্ভব। কারন আমরা এটা জানি যে, প্রফেশনাল আর্টিকেল বলতে বোঝানো হয়ে থাকে এমন আর্টিকেলকে, যা অডিয়েন্সদের কাছে বোধগম্য। যেখানে অতিরিক্ত কথার মারপ্যাঁচ নেই। যেমন ধরুন, আপনি কাউকে বলবেন আজকে রবিবার। কিন্তু আপনি এই একই কথা যদি এভাবে না বলে, বলেন– আজ যেন কি বার! কাল ছিল শনিবার আজ হচ্ছে রবিবার।

তাহলে দেখুন, বাক্যটা অনেক বেশি বড় হয়ে গেল সে সাথে জোরালো মনে হচ্ছে। অথচ ইনফরমেশন একই। আর এটাই হচ্ছে ভালো মানের আর্টিকেল লেখার একটা টেকনিক। অনেক বেশি বড় করলেই সেটা প্রফেশনাল আর্টিকেল হিসেবে গণ্য হয় না। তাই আপনি ইংরেজিতে হোক অথবা বাংলায়, যেভাবে কোন কনটেন্ট লেখেন না কেন তা অবশ্যই ইনফরমেশন পূর্ণ করবেন, এবং অডিয়েন্স কি চাচ্ছে সেটা খুব সুন্দর ভাবে অল্প কথায় তুলে ধরবে। 

ইংরেজি আর্টিকেল লেখার কলা কৌশল

দেখুন একজন প্রফেশনাল ও কনটেন্ট রাইটার হতে গেলে অবশ্যই কনটেন্ট লেখার কলাকৌশল জেনে নেওয়াটা উচিত। আর সেটা না হলে তাকে প্রফেশনাল বলা যাবে না। তাই আপনি যদি কোন আর্টিকেল লিখতে শুরু করেন তার পূর্বে মূলত যে যে কাজ করতে হবে আপনাকে।

  • রিসার্চ
  • বারবার পড়া
  • ভিজুয়ালাইজ করা
  • কনটেন্ট স্ট্রাকচার তৈরি করে নেওয়া
  • ধীরস্থির মনে লেখা শুরু করা
  • যথেষ্ট সময় দেওয়া
  • ধৈর্য ধারণ করা
  • সর্বদা বেশি বেশি ইনফরমেশন দেওয়ার চেষ্টা করা
  • অল্প কথায় বুঝাতে পারা অর্থাৎ ক্লিয়ার কনটেন্ট
  • কনটেন্ট এর মধ্যে নতুনত্ব নিয়ে আসা মানে ইউনিক করে লেখা।

কেউ যদি আর্টিকেল লেখার সময় এই কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখে এবং সুন্দরভাবে ইউজারস ফ্রেন্ডলি করে লেখে তাহলে সেটা অবশ্যই প্রফেশনাল কনটেন্ট হিসেবে গণ্য করা যাবে। মূলত ইংরেজিতে আর্টিকেল লেখার এটা অন্যতম উপায় বা পদ্ধতি। 

বাংলা/ইংরেজি আর্টিকেল লেখার টিপস

  • যেকোনো ভাষার আর্টিকেল লেখার পূর্বে বারবার করতে হবে। মনে রাখতে হবে কোন বিষয়ে জানলে অপরকে জানানো সম্ভব। সুতরাং বারবার রিচার্জ করার মাধ্যমে জানতে হবে পড়তে হবে এরপর আরম্ভ করতে হবে লেখা।
  • কিভাবে লিখলে আমার নিজের কাছে কনটেন্টটি সুন্দর দেখাবে। এমনকি অডিয়েন্স পছন্দ করবে এ বিষয়ে খেয়াল রেখে একটা সুন্দর স্ট্রাকচার ফলো করে কনটেন্ট লিখতে হবে। যেমন প্রথমে মূলভাব, তারপর অল্প বিস্তারিত, এরপর বেশি বিস্তারিত, পরবর্তীতে শেষ অংশ। এক কথায় এসইও ফ্রেন্ডলি করার পাশাপাশি ইউজার ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে হবে।
  • একটি রিসেন্ট গবেষণায় এটা প্রমাণিত হয়েছে যে– অধিকাংশ প্রফেশনাল আর্টিকেল রাইটার সকালে আর্টিকেল লিখে থাকেন। কারণ ঘুমের পর ব্রেইন একদম ঠান্ডা থাকে। ফুরফুরে ফ্রেশ মেজাজ নিয়ে খুব সহজেই সুন্দরভাবে কোন বিষয় উপস্থাপন করা সম্ভব হয়। তাই আর্টিকেল লেখার এই টিপসটি অনেক বেশি কার্যকরী।
  • আর হ্যাঁ অবশ্যই কোন আর্টিকেল লেখার পরবর্তীতে বারবার রিভাইস দিতে হবে। কোন জিনিস যদি নিজের কাছে বোধগম্য হয় তাহলে অডিয়েন্সদের কাছে বোধগম্য হবে এটা স্বাভাবিক। 
  • শেষ পর্যায়ে আপনি যে আর্টিকেলটি লিখেছেন সেটা আপনার বাড়িতে বা ফ্রেন্ড সার্কেলের মধ্যে কয়েকজনকে পড়তে দিতে হবে। তারা যদি কোন বিষয়ে সাজেস্ট করে তাহলে সেগুলো ঠিক করে পরবর্তীতে অডিয়েন্সদের উদ্দেশ্যে ওয়েবসাইটে পাবলিস্ট করা সর্বোত্তম। 

আশা করি এই কয়েকটি টিপস ফলো করলে খুব সহজেই ভালো ও মানসম্মত ইংরেজি আর্টিকেল লেখা সম্ভব।

বিস্তারিত আরও জানতে ভিজিট করুন: link 

পরিশেষে: প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, আমাদের আজকের আলোচনা এপর্যন্তই। নিয়মিত টিপস ও ট্রিকস রিলেটেড আর্টিকেল পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Subscribe To Our Newsletter